প্রশ্ন ॥১.০৮।। কর্পোরেট সিদ্ধান্তসমূহ আলোচনা কর ৷ [জা.বি. ২০১১ (পুরাতন)]

কর্পোরেট সিদ্ধান্তসমূহ


উত্তরঃ
ভূমিকা : যেকোনো ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে আর্থিক সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কাজ। কারণ সঠিকভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণের উপর ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব। ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের অর্থ সম্পর্কিত অর্থ ব্যবস্থাপনার সিদ্ধান্ত গ্রহণই হচ্ছে আর্থিক সিদ্ধান্ত। ব্যবসায়ের সঠিকভাবে পরিচালনা করার জন্য যেসব সরঞ্জামের প্রয়োজন হয় সেগুলোর মধ্যে কলকব্জা ও যন্ত্রপাতি ক্রয়, আয় বণ্টন, মূলধন বিন্যাসকরণ ইত্যাদি কাজের প্রয়োজনকে বুঝায় ৷

বিভিন্ন ধরনের কর্পোরেট সিদ্ধান্তসমূহ : কর্পোরেট সিদ্ধান্তকে প্রধানত তিন ভাগে ভাগ করা যায় । যথা :
১. বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত (Investment decision)
(ক) মূলধন বাজেটিং সিদ্ধান্ত (Capital budgeting decision)
(খ) কার্যকরী মূলধন ব্যবস্থাপনায় সিদ্ধান্ত (Working capital
management)
২. অর্থসংস্থানের সিদ্ধান্ত (Financing decision)
৩. লভ্যাংশ সিদ্ধান্ত (Dividend decision)
নিম্নে কর্পোরেট সিদ্ধান্তগুলো উপস্থাপন করা হলো :
১. বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত : কর্পোরেট সিদ্ধান্তের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হলো বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত। ব্যবসায়ের তহবিল থেকে কি ধরনের সম্পদ সংগ্রহের জন্য ব্যবহৃত হবে তা লক্ষ্য অর্জন করতে হয় বিধায় এ সিদ্ধান্তটি গুরুত্বপূর্ণ। বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত বলতে সংগৃহীত তহবিলের মাধ্যমে সম্পত্তি নির্বাচন করাকে বুঝায়। এ সিদ্ধান্তের মূল বিষয় হচ্ছে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে কি পরিমাণ সম্পত্তি রাখা প্রয়োজন। সম্পত্তিগুলো কিরূপ হবে এর সাথে জড়িত কিংবা ঝুঁকিসমূহ বিবেচনা করাকে বুঝায়। বিনিয়োগ সিদ্ধান্তকে সংক্ষেপে আলোচনা করা হলো :
(ক) মূলধন বাজেটিং সিদ্ধান্ত : মূলধন বাজেটিং-এর ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। মূলত এটি দ্বারা যে সম্পদ থেকে দীর্ঘমেয়াদি সময় ধরে সুবিধা ভোগ করা যেতে পারে তা নির্ধারণ করাকে বুঝায়।
মূলধন বাজেটিং দীর্ঘসময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা হয় বিধায় এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।
(খ) কার্যকরী মূলধন ব্যবস্থাপনা : আর্থিক ব্যবস্থাপনার মধ্যে আর একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো কার্যকরী মূলধন ব্যবস্থাপনা যা চলতি সম্পত্তির সাথে সম্পৃক্ত। তাই কার্যকরী মূলধনের ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে অন্যতম উদ্দেশ্য হলো তারল্যতা ও মুনাফা লভ্যাংশতার সমন্বয়সাধন। এটি কর্পোরেট সিদ্ধান্তের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাছাড়া প্রত্যেকটি চলতি সম্পদকে সঠিকভাবে পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত নিতে হবে যাতে করে দরকারি তহবিল আটকে না থাকে।
২. অর্থসংস্থানের সিদ্ধান্ত : একজন আর্থিক ব্যবস্থাপনার সাথে সংশ্লিষ্ট অপর একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হলো ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের অর্থসংস্থান। ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগের চাহিদা মিটানোর জন্য কখন এবং কিভাবে অর্থায়ন করা হবে সে সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হয়, একে অর্থসংস্থান বলে। আর্থিক ব্যবস্থাপক প্রতিষ্ঠানের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের উপার্জন ও ঝুঁকি প্রভাবিত করে।
৩. লভ্যাংশ সিদ্ধান্ত : কর্পোরেট সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে লভ্যাংশ সিদ্ধান্ত বিষয়টি খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। এখানে মূলত মুনাফার কত অংশ শেয়ার মালিকদের মধ্যে বণ্টন করা হবে, আর কত ব্যবসায়ে সংরক্ষিত হবে তার অনুপাত নির্ণয়ই লভ্যাংশগত সিদ্ধান্ত ।
ব্যবসায়ের মুনাফা কিভাবে বণ্টিত হবে সেইসব সম্পর্কিত যাবতীয় কার্যাদির সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা প্রয়োজন। এই সকল সিদ্ধান্ত গ্রহণের পূর্বে শেয়ারহোল্ডারবৃন্দের পছন্দ এবং ব্যবসায়ে বিনিয়োগ সুবিধার প্রতি বিশেষ নজর রাখতে হয়।
উপসংহার : পরিশেষে উপরিউক্ত আলোচনা দ্বারা এটাই প্রতীয়মান হয় যে, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের উন্নতি সাধনের লক্ষ্যে কর্পোরেট সিদ্ধান্ত এক অনন্য ভূমিকা পালন করে থাকে। ফলে সঠিক কর্পোরেট সিদ্ধান্তবিহীন ব্যবসায়ে সাফল্য অর্জন করা সম্ভব নয় ।

Share post:

Subscribe

Popular

More like this
Related

প্রশ্ন ১.০৪। ইতিহাসের পরিধি ব্যাখ্যা কর । অথবা, ইতিহাসের আওতা আলোচনা কর । Best Explain the scope of history 2024

মুল বিষয়বস্তু ইতিহাসের পরিধি :১. মানুষের উৎপত্তি ও ক্রমবিবর্তন...